• Post author:
  • Reading time:1 mins read

নোবেল এবং বুকার প্রাইজ সাহিত্য জগতের গুরুত্বপূর্ণ এবং মর্যাদাবান পুরস্কার। ২০২১ সালে মর্যাদাবান এই পুরস্কার দুটি আফ্রিকার লেখকদের হাতে গেছে। এছাড়া আফ্রিকান অভিবাসী লেখকরাও গুরুত্বপূর্ণ কিছু সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন।

এসব লেখকদের মধ্যে প্রথমেই নোবেল বিজয়ী আব্দুলরাজাক গুরনাহর নাম আসবে। এরপর বুকারজয়ী ড্যামন গ্যালগাটের কথা বলা যায়। এছাড়াও রয়েছেন মোহাম্মদ এমবুগার সার, ডেভিড ডিয়োপ। ২০২১ সালের উল্লেখযোগ্য কয়েকজন আফ্রিকার লেখকদের তালিকা নীচে দেয়া হলো।

আব্দুলরাজাক গুরনাহ: ২০২১ সালের অক্টোবরে বিশ্ব সাহিত্যের সবচেয়ে মর্যাদাবান পুরস্কার হিসেবে বিবেচিত নোবেল প্রাইজ পান আব্দুলরাজাক গুরনাহ। পূর্ব আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ার জাঞ্জিবারে জন্মগ্রহণ করেন এই লেখক। ১৯৬৮ সালে তিনি শরণার্থী হিসেবে ব্রিটেনে আসেন।শরণার্থীদের দুঃখ-দুর্দশার কাহিনী সহানুভূতির সঙ্গে উপন্যাসে ফুটিয়ে তোলার জন্য গুরনাহকে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়। তিনি এপর্যন্ত ১০টি উপন্যাস লিখেছেন। তার উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হলো, প্যারাডাইজ, বাই দ্য সি, আফটারলাইভস।

ড্যামন গ্যালগাট: গত বছরের নভেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকার উপন্যাসিক এবং নাট্যকার ড্যামন গ্যালগাট বুকার প্রাইজ পেয়েছিলেন। তিনি ‘দ্য প্রমিজ’ উপন্যাসের জন্য এই পুরস্কার পান।২০০২ এবং ২০১০ সালের বুকার প্রাইজের সংক্ষিপ্ত তালিকায় তার নাম ছিল। অবশেষে ২০২১ সালে এসে তিনি এটি জয় করতে সক্ষম হন। বুকার জয়ের পর তিনি বলেছিলেন, ’আফ্রিকান লেখকদের জন্য এটি একটি দুর্দান্ত বছর ছিল।‘দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ নিয়ে দ্য প্রমিজ উপন্যাসটি লিখেছেন ড্যামন গ্যালগাট।

ডেভিড ডিয়োপ:সেনেগালিজ বংশোদ্ভূত ফরাসি উপন্যাসিক ডেভিড ডিয়োপ। গত বছরের জুনে তিনি ইন্টারন্যাশনাল বুকার প্রাইজ জয় করেন। ‘এট নাইট অল ব্লাড ইজ ব্ল্যাক’ উপন্যাসের জন্য ৫৫ বছর বয়সি ডিয়োপ সাহিত্য জগতের নামকরা এই পুরস্কারটি পান।ফরাসি ভাষা থেকে ইংরেজিতে বইটি অনুবাদ করেছেন আনা মসচোভাকিস। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ফ্রান্সের হয়ে লড়াই করা সেনেগালিজ সৈন্যদের কথা বলা হয়েছে এই উপন্যাসে।

মোহাম্মদ এমবুগার সার: পশ্চিম আফ্রিকার দেশ সেনেগালের লেখক মোহাম্মদ এমবুগার সার। তিনি ফ্রান্সে পড়ালেখা করেছেন। এছাড়া ফরাসি ভাষায় লেখালেখিও করেন। গত বছরের নভেম্বরে ৩১ বছর বয়সি এই লেখক ফ্রান্সের শীর্ষ সাহিত্য পুরস্কার ‘প্রি গনকোর’ জিতেছেন। তিনি দেশটির সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ, প্রাচীনতম এই পুরস্কার বিজয়ী প্রথম সাব-সাহারান আফ্রিকান লেখক।‘লা প্লাস সিক্রেতে মেমোয়ার দে হোমস’(দ্য মোস্ট সিক্রেট মেমোরি অব মেন) উপন্যাসের জন্য তিনি এই পুরস্কার পান।

নাদিফা মোহাম্মদ:সোমালি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখক নাদিফা মোহাম্মদ। ২০২১ সালের বুকার প্রাইজের সংক্ষিপ্ত তালিকায় তার ‘দ্য ফরচুন মেন’ উপন্যাসটি স্থান করে নিয়েছিল। ফলে তিনিই হলেন এই সম্মান অর্জনকারী প্রথম সোমালি-ব্রিটিশ উপন্যাসিক। উপন্যাস ছাড়াও ছোট গল্প, প্রবন্ধ এবং স্মৃতিকথা লিখেছেন নাদিফা মোহাম্মদ। তার প্রথম উপন্যাস ব্ল্যাক মাম্বা বয়। এটি ২০১০ সালে প্রকাশিত হয়। বইটি বেশ কয়েকটি পুরস্কার পেয়েছিল। ২০১৩ সালে তার দ্বিতীয় উপন্যাস দ্য অরচার্ড অব লস্ট সোলস প্রকাশিত হয়। এটি সমারসেট মম অ্যাওয়ার্ড জয় করে।

কারেন জেনিংস: দক্ষিণ আফ্রিকার লেখক কারেন জেনিংস। গত বছরের বুকার প্রাইজের প্রাথমিক তালিকায় তার উপন্যাস ‘অ্যান আইল্যান্ড’ স্থান করে নিয়েছিল।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

Leave a Reply