রোদ্দুর রায় একজন কবি, লেখক এবং ইউটিউবার। মূলত রবীন্দ্র সঙ্গীতকে বিকৃত করে গাওয়ার মাধ্যমেই লাইমলাইটে চলে আসেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের এই ইউটিউবার।  

মঙ্গলবার (৭ জুন) গ্রেফতার হন রোদ্দুর রায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়।   

এর আগেও বিভিন্ন সময় বিতর্কের কেন্দ্রে ছিলেন তিনি। তার পুরো পরিচয় অনেকেরই জানা নেই। রোদ্দুর রায় নামে পরিচিত এই ইউটিউবারের আসল নাম অনির্বাণ রায়। ফিকশন ফ্যাক্টরির পাঠকদের জন্য তার সম্পর্কে কিছু তথ্য দেয়া হলো।

১. মুখে অশ্রাব্য ভাষা ছুটলেও রোদ্দুর রায়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা রীতিমতো ঈর্ষণীয়। তিনি স্নাতক স্তরের পড়াশোনা শেষ করেন।

২. গিটার বাজাতে পারদর্শী রোদ্দুর কিছু দিন ডিজে হিসাবেও কাজ করেছেন।

৩. রোদ্দুর রায় গবেষক হিসাবেও কাজ করেছেন। তার গবেষণার বিষয়বস্তু চেতনা বিজ্ঞান। অনেকের মত, তিনি যে ভাষা প্রয়োগ করেন এবং যে ধরনের গানবাজনা করেন, তা তার গবেষণার অঙ্গ।

৪. মনোবিজ্ঞানের উপর একটি বইও লিখেছেন রোদ্দুর রায়। সেই বইয়ের নাম ‘অ্যান্ড স্টেলা টার্নস এ মম’।

৫. এক সময় দিল্লির নয়ডাতে আইটি সেক্টরে চাকরি করেছেন। পরে চাকরি ছেড়ে আবার পড়াশোনার মধ্যে ফিরে আসেন তিনি।

৬. রোদ্দূর রায় বাংলায় একটি উপন্যাসও লিখেছেন। তার নাম – ‘মোক্সা রেনেসাঁ’। তিনি নিজেকে ‘মোক্সা ঘরানা’র প্রতিষ্ঠাতা বলেও দাবি করেন।

৭. রবীন্দ্রনাথ এবং নজরুল ইসলামের গানের প্যারোডি গেয়ে সব সময়ে বিতর্কে থাকেন রোদ্দুর। তাকে একবার জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, তিনি রবীন্দ্রবিরোধী নাকি তিনি রাবীন্দ্রিকতা বিরোধী? উত্তরে রোদ্দুর বলেছিলেন, ‘দাদুর প্রতি আমার অসীম প্রেম।’ তাতেও চটে যান রবীন্দ্রপ্রেমীরা।   

৮. রবীন্দ্রনাথের ‘চাঁদ উঠেছিল গগনে’ গানটিকে অশ্লীল গালাগাল ঢুকিয়ে বিকৃত করার বিরোধিতা করে রোদ্দুর রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছিল৷ সেবার তার সমর্থন ও বিরোধিতায় দ্বিধাবিভক্ত ছিল সোশ্যাল মিডিয়া।  

ওই অশ্লীল শব্দ সহযোগেই খোদ বিশ্বভারতীতে রোদ্দুরের সম্পাদিত রবীন্দ্রনাথের গান গেয়ে বিতর্ক তৈরি করেছিল কিছু শিক্ষার্থী৷ একই সঙ্গে এক বসন্ত উৎসবে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু ছাত্রছাত্রী নিজেদের পিঠে আবির দিয়ে ওই অশ্লীল শব্দের গানের কিছু অংশ লিখেছিল। এ নিয়ে বিরোধিতা চরমে গিয়েছিল এবং সম্ভবত সে সময়ও সাইবার ক্রাইমে রোদ্দুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছিল অনেকে।   

৯. নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে অদ্ভুত সব কবিতা লিখেন তিনি। একটি উকুলেলে সঙ্গে নিয়ে ফেসবুক লাইভে তাকে বেসুরো গলায় গান গাইতে দেখা গেছে অনেক সময়। এই গান, কবিতাগুলি অশ্লীল গালাগালে ভরা থাকত৷ এবং সেগুলিই চিৎকার করে গাইতেন তিনি। নিজের এই অদ্ভুত সৃষ্টিকে মোক্সা-আর্ট ও নিজেকে ‘বিশ্যোকোবি’ (এরকম অদ্ভুদ বানানই লিখতেন) বলে দাবি করতেন রোদ্দুর!  

১০. অবশেষে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে অশালীন মন্তব্য করে ফেঁসে যান তিনি। মমতা বাংলা সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পাওয়ার পর তাকে কটাক্ষ করে ফেসবুকে ভিডিও লাইভ করেছিলেন তিনি। এছাড়া মুখ্যমন্ত্রীর লেখা ছড়াকে কটাক্ষ করে অশ্লীল শব্দেপূর্ণ অদ্ভুত সব ছড়া লিখেছিলেন রোদ্দুর রায়৷

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস, ওয়ান ইন্ডিয়া

Leave a Reply