যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ছুরিকাঘাতে আহত লেখক সালমান রুশদীকে বর্তমানে হাসপাতালের ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। এছাড়া তিনি একটি চোখ হারাতে পারেন বলে জানিয়েছেন তার এজেন্ট।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) সকালে পশ্চিম নিউইয়র্কে একটি লিটারারি ইভেন্টে বক্তৃতা দিতে মঞ্চে উঠার পর হামলার শিকার হন তিনি। 

রুশদীকে কমপক্ষে একবার গলায় এবং একবার পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ।

৭৫ বছর বয়সি আহত এই লেখককে হেলিকপ্টারে করে হাসপাতালে নেয়া হয়। অস্ত্রোপচারের পর তাকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তিনি কথা বলতে পারছিলেন না।

রুশদীর বুক এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে লেখা এক ইমেইলে লেখকের অবস্থা ভালো নয় বলে জানান। তিনি লিখেন, ‘সালমান সম্ভবত একটি চোখ হারাতে পারেন। ছুরিকাঘাতে তার বাহুর স্নায়ু বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে এবং লিভার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

এদিকে সন্দেহভাজন হামলাকারীকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। ২৪ বছর বয়সি এই ব্যক্তির নাম হাদি মাতার। তিনি নিউ জার্সির বাসিন্দা।

সন্দেহভাজন হামলাকারী হাদি মাতার

নিউইয়র্ক স্টেট পুলিশের মেজর ইউজিন স্ট্যানিসজেউস্কি শুক্রবার বিকেলে সাংবাদিকদের বলেছেন, রুশদীর ওপর হামলার কারণ এখনো বের করতে পারেননি তারা। তবে তাদের বিশ্বাস, হাদি মাতার একাই এই হামলা করেছেন। তার কোন সহযোগী ছিল না।

উল্লেখ্য, সালমান রুশদী ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ উপন্যাসিক। ১৯৮৮ সালে প্রকাশিত স্যাটানিক ভার্সেস বইয়ের জন্য মুসলিম বিশ্বে সমালোচিত হন তিনি। তার এই বইটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নিষিদ্ধও করা হয়। এমনকি তাকে হত্যার জন্য ফতোয়া দিয়েছিলেন ইরানের প্রয়াত নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনি।  

সূত্র: আলজাজিরা

Leave a Reply