বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান চিত্রশিল্পী, অলঙ্করণ শিল্পী এবং লেখক ফাহমিদা আজিম চলতি বছরের পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছেন। উইঘুর নির্যাতন নিয়ে ইলাস্ট্রেটেড প্রতিবেদন তৈরি করা বিজয়ী দলের একজন তিনি।  

পুলিৎজার প্রাইজের ‘ইলাস্ট্রেটেড রিপোর্টিং অ্যান্ড কমেন্টারি’ ক্যাটাগরিতে ফাহমিদা ছাড়াও পুরস্কার বিজয়ী দলে রয়েছেন অ্যান্থনি ডেল কোল, জশ অ্যাডামস ও ইনসাইডারের ওয়াল্ট হিকি।  

উইঘুর নির্যাতন নিয়ে তৈরি ইলাস্ট্রেটেড প্রতিবেদন

‘How I escaped a Chinese internment camp’ শিরোনামের ইলাস্ট্রেটেড প্রতিবেদনটি ২০২১ সালে ২৮ ডিসেম্বর নিউইয়র্কের সংবাদমাধ্যম ‘ইনসাইডার’ এ প্রকাশিত হয়। এতে অলঙ্করণের কাজ করেছিলেন ফাহমিদা।  

ছয় বছর বয়সে বাবা-মার সাথে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় পাড়ি জমান ফাহমিদা। শৈশব থেকেই খ্যাতিমান একজন চিত্রশিল্পী হওয়ার স্বপ্ন দেখেছেন তিনি। ফলে কম্যুনিকেশন্স আর্টে লেখাপড়া করেন। বর্তমানে তিনি ওয়াশিংটনের সিয়াটলে একটি কোম্পানিতে গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে কাজ করছেন।  

এছাড়া তিনি স্কলাস্টিকস গ্রাফিক্সের জন্য ‘Mega Megha’ নামের একটি গ্রাফিক নভেলও লিখছেন। এটি তার প্রথম একক গ্রাফিক নভেল। 

রোহিঙ্গা শরণার্থী কিশোরীকে নিয়ে লেখা বই  ‘সামিরা সার্ফস’ 

এই চিত্রশিল্পী, লেখক প্রথম কোনও বাংলাদেশি-আমেরিকান হিসেবে পুলিৎজার পুরস্কার পেলেন। তিনি ‘Samira Surfs’ নামের বইয়ে অলঙ্করণের জন্যে এ বছর গোল্ডেন কাইট পুরস্কার পান।

আমিরা’স পিকচার ডে

ফাহমিদা আজিম ২০২০ সালে ‘Muslim Women Are Everything’ এবং ২০২১ সালে ‘Amira’s Picture Day’ বইয়ের জন্য ছবি এঁকে পুরস্কার পেয়েছিলেন।  

মুসলিম উইমেন আর এভরিথিং

নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য নিউ ইয়র্কার, সায়েন্টিফিক আমেরিকান, দ্য ইন্টারসেপ্ট, এন্টারটেইনমেন্ট উইকলি, এনপিআর, গ্ল্যামার, ভাইস ছাড়াও বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার শিল্পকর্ম প্রকাশিত হয়েছে। 

ফাহমিদা সম্পর্কে পুলিৎজার কর্তৃপক্ষ জানায়, তিনি একজন ইলাস্ট্রেটর ও স্টোরিটেলার যিনি কাজ করেন মানুষের পরিচয়, সংস্কৃতি ও স্বাধীনতা নিয়ে।

ফাহমিদা আজিমের করা একটি অলঙ্করণ

ফাহমিদা আজিমের চেতনায় সব সময় উজ্জীবিত থাকে মুসলিম নারীদের অধিকার ও মর্যাদা। বহুজাতিক সমাজে মুসলিম নারীদের সংস্কৃতি এবং তাদের মধ্যে পারষ্পারিক যোগাযোগ নিয়ে কাজ করেন তিনি।

এর আগে ২০১৮ সালে বাংলাদেশি আলোকচিত্রী পনির হোসেন রয়টার্সের পাঁচ ফটো সাংবাদিকদের সঙ্গে পুলিৎজার জিতেছিলেন।  

উল্লেখ্য, সাংবাদিকতা ও প্রকাশনার বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতিবছর যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেয়া হয় পুলিৎজার পুরস্কার। সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে এটিকে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

Leave a Reply