সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে ‘জ্ঞানচর্চা ও পাঠাভ্যাস’ বাড়ানোর লক্ষ্যে ৯ কোটি ৫৪ লাখ টাকার বই বরাদ্দ দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। টাকার পাশাপাশি মন্ত্রণালয় থেকে জেলা-উপজেলায় ১ হাজার ৪৭৭টি বইয়ের তালিকাও পাঠানো হয়েছে। আর এই তালিকায় একজন অতিরিক্ত সচিবেরই রয়েছে ২৯টি বই। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

মো. নবীরুল ইসলাম জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব। তার লেখা ২৯টি বইয়ের অধিকাংশই কবিতার বই। তার বইগুলোর মধ্যে রয়েছে, বঙ্গবন্ধু তোমায় আমি ভালোবেসেছি, কেউ কারো জন্য দাঁড়িয়ে থাকে না, পথ চেয়ে রয়েছি অথচ, আজ সকালের গল্প ইত্যাদি।

মন্ত্রণালয়ের পাঠানো তালিকায় সরকারি কর্মকর্তাদের লেখা বইয়ের প্রাধান্য রয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে শতাধিক বই অন্তত ২৫ জন ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তার লেখা। এছাড়া একজন সংসদ সদস্যের আছে ৪টি বই।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা ১৬৬টি বইয়ের মধ্যে অন্তত ৪০টি ১৫ জন সরকারি কর্মকর্তার লেখা।

বাংলা সাহিত্যের গুরুত্বপূর্ণ লেখকদের বই তালিকায় স্থান না পাওয়ায় অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কালের কণ্ঠের অনলাইন ইনচার্জ গাউস রহমান পিয়াস ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে লিখেন, ‘আমরা দু:খিত, দুই যুগ গণমাধ্যমে কাজ করেও এই লেখককে আবিষ্কার করতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি। কোনদিন জানাই হতো না, সরকার বাহাদুর এই উদ্যোগ যদি না নিতো।’

উল্লেখ্য, গত অর্থবছরের (২০২১-২০২২) শেষ সময়ে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের ‘বইপত্র ও সাময়িকী’ খাত থেকে বই কিনতে দেশের ৪৯২ উপজেলা কার্যালয়ের জন্য ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। এছাড়া ৬৪ জেলা প্রশাসক ও ৮ বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের জন্যও ৩ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। সারা দেশের সরকারি কর্মকর্তাদের পরবর্তী তিন অর্থবছরেও একইভাবে বই পড়ানোর পরিকল্পনা আছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের।

Leave a Reply